1. info@gaibandhaexpress.news : Farhan :
সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:০৬ অপরাহ্ন

দিনাজপুরে হেলমেট না পরায় ৩ ঘণ্টায় ১১ লাখ টাকা জরিমানা

সারাদেশ
  • Update Time : সোমবার, ৪ এপ্রিল, ২০২২
  • ৮০ Time View

দিনাজপুরে হেলমেট না পরায় ৩ ঘণ্টায় ১১ লাখ টাকা জরিমানা

সোহেল রানার (৩৯) বাড়ি দিনাজপুরের বিরল উপজেলায়। পেশায় হোটেল ব্যবসায়ী। রোববার সকালে বিরল থেকে সদর উপজেলার মাতাসাগর এলাকায় বোনের বাসায় যাচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু পৌর শহরের লিলির মোড় এলাকায় পথরোধ করে ট্রাফিক পুলিশ।

পুলিশ হেলমেট না পরার কারণ জানতে চাইলে সোহেল বলেন, ‘মনে নেই, তাড়াহুড়ো করে বাইর হয়েছিলাম।’ এই কথা শুনে গাড়ির চাবি নেয় ট্রাফিক পুলিশ। রাস্তার পাশে মোটরসাইকেল রেখে ট্রাফিক পুলিশকে সোহেল ফোন ধরিয়ে দিলেন অভিযানে থাকা পুলিশ কর্মকর্তার কাছে। কিন্তু কোনো লাভ হলো না। হেলমেট না পরে মোটরসাইকেল চালানোর দায়ে ৩ হাজার ৬০ টাকা জরিমানা গুনতে হলো সোহেলকে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মোটরসাইকেল চালানোর সময় হেলমেট না পরার জবাব প্রায় সবারই একই রকমের। কেউ ভুল করে ছেড়ে এসেছেন, কেউ তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে, কারও মাথা গরম হয়ে যায়, কারও বা দম বন্ধ হয়ে আসে।

জেলা পুলিশ জানায়, রোববার সকাল ১০টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত এই তিন ঘণ্টা দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলায় একযোগে পুলিশের বিশেষ অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযানে ৩৮৪টি মামলা হয়েছে। এতে ৩৮৪ জন মোটরসাইকেল আরোহীকে শুধু হেলমেট না পরার অপরাধে ১১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি জরিমানা করা হয়েছে সদর উপজেলায় ৫৩ জনকে। এই দিন মোট জরিমানা করা হয়েছে ১২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা। এর আগে ২৪ মার্চ বিশেষ অভিযানে ৬০৭টি মামলায় ১৮ লাখ ২১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

দিনাজপুরে সড়ক দুর্ঘটনা বিষয়ে সতর্কতা বাড়াতে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও হেলমেট পরিধান করে গাড়ি চালানোর ওপরে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে জেলা পুলিশ। পুরো শহরে আটটি পয়েন্টে ভাগ করে প্রতিটি পয়েন্টে চালানো হচ্ছে বিশেষ অভিযান। রোববার সকাল ১০টায় লিলির মোড় এলাকায় অভিযান পরিচালনায় ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শচীন চাকমা। লিলির মোড়ে দুই ঘণ্টায় ২১ জন মোটরসাইকেল আরোহীকে জরিমানা করা হয়েছে। পুলিশ বলছে, বিশেষ অভিযানের কারণে এক মাস থেকে হেলমেট পরার প্রবণতা বাড়ছে।

মির্জাপুর কলেজ মোড় এলাকায় পুলিশের অভিযান দেখে কলেজ গেট থেকে গাড়ি ঘুরিয়ে উল্টো দিকে যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন আতাউর রহমান (২৬)। লাভ হয়নি। পুলিশের এক কনস্টেবল ততক্ষণে কাছে চলে এসেছেন। এই পয়েন্টে অভিযান পরিচালনায় ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মোমিনুল করিম। পুলিশ দেখে গাড়ি ঘোরানোর কারণ জানতে চাইলে আতাউরের উত্তর, ‘বাড়ি কাছেই, একটু সময়ের জন্য বের হয়েছি। তাই পরিনি।’ পরে বাড়ি থেকে হেলমেট নিয়ে এলে গাড়ির চাবি পান আতাউর।

দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, কয়েক দিন আগেও নবাবগঞ্জ উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় একই সঙ্গে তিন মোটরসাইকেল আরোহীর নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। কারোরই মাথায় হেলমেট ছিল না। হেলমেট পরা থাকলে দুর্ঘটনায় মৃত্যুঝুঁকি কম থাকে। তিনি আরও বলেন, বেশির ভাগ উঠতি বয়সীরা মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার হয়। তারা হেলমেট না পরাসহ বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালায়। প্রত্যেক মোটরসাইকেল আরোহীকে প্রয়োজনে পেছনে বসা যাত্রীরও হেলমেট পরিধান নিশ্চিত করতে পুলিশ কাজ করছে। ইতিমধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশ মানুষকে হেলমেট পরানো সম্ভব হয়েছে।

© প্রথম আলো

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All Rights Reserved © 2021 Gaibandha Express
Theme Customized BY LatestNews